ওয়ার্ডপ্রেস/wordpress

ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে বর্তমানে সর্বাধিক জনপ্রিয় ব্লগ পাবলিশিং অ্যাপলিকেশনস এবং শক্তিশালী কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS), যা পিএইচপি এবং মাইএসকিউএল দ্বারা তৈরিকৃত ওপেন সোর্স ব্লগিং সফটওয়্যার। ওয়ার্ডপ্রেস প্রথম পর্যায়ে একটি ফ্রি ব্লগিং প্লাটফর্ম ছিল যা পরবর্তীকালে একটি ইঞ্জিন তৈরি করে এবং বিনামূল্যে তা ডাউনলোড করে যেকোনো ব্লগারকে ব্যবহারের সুবিধা দিতে শুরু করে . ওয়ার্ডপ্রেস দ্বারা কোনো প্রকার পিএইচপি, মাইএসকিউএল বা এইচটিএমএল জ্ঞান ছাড়াই একটি প্রোফেশনাল মানের ওয়েবসাইট তৈরি করা সম্ভব। ম্যাট মুলেনওয়েগ ২০০৩ সালের ২৭শে মে এটি প্রাথমিকভাবে প্রকাশ করেন। জানুয়ারি ২০১২ পর্যন্ত ওয়ার্ডপ্রেস ৩.৪ সংস্করণ ৩ কোটিরও বেশিবার ডাউনলোড হয়েছিল (!!)।
একটি PHP ও MySQL দ্বারা তৈরি উন্মুক্ত প্রযুক্তি ব্লগিং সফটওয়্যার। বর্তমানে এটি সর্বাধিক জনপ্রিয় কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS), এবং বিশ্বের প্রথম সারির ১০,০০,০০০টি ওয়েবসাইটের ১২% এটি ব্যবহার করে।
ম্যাট মুলেনওয়েগ ২০০৩-এর ২৭শে মে এটির প্রাথমিক প্রকাশ করেন। আগস্ট ২০১০ পর্যন্ত ওয়ার্ডপ্রেসের সাম্প্রতিকতম সংস্করণ ওয়ার্ডপ্রেস ৩.০ ১২৫লক্ষ বারের বেশি ডাউনলোড করা হয়েছে।

বিশেষ বৈশিষ্ট্য

  • সফটওয়্যারটি ওপেনসোর্স এবং বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যায়
  • ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে কোনো প্রকার PHP এবং HTML জ্ঞান ছাড়াই ব্লগিং ওয়েবসাইট তৈরি করা সম্ভব
  • প্লাগইন যা ইনস্টল করে ওয়েবসাইটকে আরো সয়ংক্রিয় করে তোলা যায়
  • ব্লগ পোস্ট ও স্ট্যাটিক পেজ সুবিধা
  • সমবায়িত ব্লগিং সুবিধা (community blog)
  • এছাড়াও বিনামূল্যে থিম , প্লাগইন্স পাওয়া যায়
  • কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিএমএস) হবার ফলে যেকোন তথ্য সহজেই পরিবর্তন, পরিবর্ধন, সংযোজন বা বিয়োজন করা যায়। অর্থাৎ আপনি স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারবেন
  • ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার বান্ধব এবং ব্যবহার প্রণালী খুবই সহজ , সার্চ ইঞ্জিন অফটিমাইজেশেন পদ্ধতি ব্যবহার ইত্যাদি
  • সার্চ ইঞ্জিন বান্ধব
  • ফ্রি ওয়ার্ডপ্রেস ডাউনলোড: ওয়ার্ডপ্রেস www.wordpress.org/download থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন

কেন ব্যবহার করা হয় এই ওয়ার্ডপ্রেস?

অনেক অনেক কারণ রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বেশী ব্যবহার করা সি এম এস ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে। আসুন তৈরী করি একটা লিস্ট যেটা দিয়ে আমরা আলাদা করতে পারব যে কেন ওয়ার্ডপ্রেস বেশী ব্যবহার করা হয়।

  • ব্যবহার করা সহজ
  • কোডের এর কোন ধারণা না থাকলে ও চলে
  • একই সাথে ডিজাইন আর কোডিং করা যায়
  • সহজে আপডেট করা সম্ভব
  • সহজে এক্সপোর্ট ও ইমপোর্ট করা যায়
  • অসংখ্য প্লাগিং ব্যবহার করা যায়
  • সহজে Editing করা যায়
  • MS Word এর মতন লেখা যায়
  • সোসাল মিডিয়া Add করা সহজ
  • Google Map Add করা যায়
  • সহজে SEO করা যায় ইত্যাদি ইত্যাদি

 

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published.